,


সংবাদ শিরোনাম:
«» এস.এম. আজহারুল ইসলাম স্মৃতি নাইট ফুটবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন অন্বেষা ক্লাব «» সামাজিক ও মানবিক কাজে বিশেষ অবদান রাখায় সম্মাননা পেলো শাকপুর ইউনিয়ন অনলাইন ব্লাড ব্যাংক। «» জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন বন্যা ও ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে «» মোহনা টিভির জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মুশফিকুর রহমানকে উদ্ধার করা হয়েছে «» আত্মত্যাগের বিনিময়েই হয় কোরবানি  «» উত্তরাতে বাংলাদেশ কেমিস্টস্ এন্ড ড্রাগিস্টস্ সমিতির নতুন কমিটি গঠন «» ডেঙ্গু প্রতিরোধে জাককানইবি’তে ছাত্রলীগের পরিচ্ছন্নতা অভিযান «» জাককানইবি’র অধীনে এমডিএস কোর্সের পূণর্মিলনী অনুষ্ঠিত «» টঙ্গীর সাংবাদিকদের সাথে গণসচেতনতামূলক মতবিনিময়ে আওয়ামীলীগের নেতারা! «» জাককানইবি’তে বঙ্গবন্ধু নীলদলের মাস ব্যাপি কাল ব্যাজ ধারণ কর্মসূচী

ছেলেধরা বলে গণধোলাই খেলেন স্বামী-স্ত্রী পরস্পর!

গাজীপুর : রাস্তায় স্বামী-স্ত্রী ঝগড়া করে একে-অন্যকে ‘ছেলেধরা’ বলে গণধোলাই খেয়েছেন উভয়ে। এ সময় গণধোলাই থেকে রেহাই পাননি তাদের সঙ্গে থাকা স্বামীর বন্ধুও।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গাজীপুরের শ্রীপুরের নয়নপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর স্ত্রীকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রিকশায় উঠেছেন স্বামী-স্ত্রী। তাদের সঙ্গে ছিলেন স্বামীর এক বন্ধু। তিনজনকে নিয়ে যখন রিকশাটি চলছিল তখন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বাধে। একপর্যায়ে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়।

তাদের ঝগড়ার বিষয় হলো দ্বিতীয় বিয়ে। স্ত্রী অভিযোগ তুলেছেন, তার স্বামী আরেকটি বিয়ে করেছেন। স্বামী অস্বীকার করছিলেন বিষয়টি। এ নিয়ে রিকশায় বসে ঝগড়া করেন স্বামী-স্ত্রী। বার বার চেষ্টা করেও তাদের ঝগড়া থামাতে পারেননি স্বামীর বন্ধু।

এ অবস্থায় রাগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে রিকশা থেকে লাফ দিয়ে নেমে ‘ছেলেধরা-ছেলেধরা’ বলে চিৎকার শুরু করেন স্ত্রী। স্বামীও তখন স্ত্রীকে ইঙ্গিত করে পাল্টা ‘ছেলেধরা-ছেলেধরা’ বলে চিৎকার শুরু করেন। তাদের চিৎকার শুনে আশপাশে থাকা লোকজন দৌড়ে আসেন। সেই সঙ্গে কিছু লোকজন স্বামী এবং কিছু লোকজন স্ত্রীকে মারধর শুরু করেন। এ সময় মারধর থেকে বাদ পড়েননি রিকশায় থাকা স্বামীর বন্ধুও। গণধোলাইয়ের একপর্যায়ে পালিয়ে যান দুই পুরুষ। তবে ওই নারীকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুই পুরুষ গণপিটুনি খেয়ে পালিয়ে গেলেও স্ত্রী জনতার হাতে ব্যাপক মারধরের শিকার হয়েছেন। বার বার ওই নারী আমি ‘ছেলেধরা’ না বললেও ছাড়েনি জনতা। পরে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে শ্রীপুর থানা পুলিশের এসআই আমিনুল হক বলেন, শ্রীপুরের বেড়াইদেরচালা গ্ৰামের মুক্তিযোদ্ধা এবিএম তাজউদ্দিনের মেয়ে তানিয়া। তানিয়ার স্বামীর সঙ্গে কথা কাটাকাটির সময় ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে দুইজনকে পিটিয়ে আহত করে এলাকাবাসী। ঘটনাস্থলে গিয়ে তানিয়াকে উদ্ধার করলেও তার স্বামী ও বন্ধু পালিয়ে যায়।

(=সামাজিক ফোরাম=)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের,তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।

Developed By H.m Farhad

Skip to toolbar