,


সংবাদ শিরোনাম:
«» আসুন প্রকৃত বাঙ্গালী হই ! সাংবাদিক রোকন «» নেত্রকোনায় ইউপি চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত। «» মুন্সীগঞ্জে লবনের দাম বৃদ্ধির গুজবে হাট বাজারে লবন কেনার ধুম । দোকান গুলোতে লবন শূন্য ৪৫ জন দোকানিকে কে জরিমানা «» বি পি এল কে কোন দলে, জানলে অবাক হবেন। «» স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বেড়ে ওঠা সম্ভাবণাময় ক্ষুদে কবি মুহাম্মদ সবুজ হোসেন «» পেঁয়াজের পর এবার চালের বাজারে আগুন «» মুরাদনগরের ‘বাঙ্গরাবাজার প্রেসক্লাব’ গঠিত জাহাঙ্গীর আলম ইমরুল সভাপতি, আবুল কালাম আজাদ সাধারণ সম্পাদক «» বাগেরহাট জেলার মোল্লারহাট থানাধীন মাদ্রাসাঘাট এলাকা হতে ১৭৭ পিচ ইয়াবাসহ ০১ জন ইয়াবা ব্যবাসয়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। «» উত্তরা ১২ নং সেক্টর বালুর মাঠ বস্তিতে মাদক-দখল বাণিজ্যে কালাম অপ্রতিরোধ্য! «» জাককানইবি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ

পড়ার বিষয় যখন সমাজবিজ্ঞান


ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা কোন শিক্ষার্থীকে যদি প্রশ্ন করা হয় কোন বিষয় নিয়ে অর্নাস করতে ইচ্ছুক? তিনি হয়তো বিজ্ঞান বা অন্য অনুষদের কয়েকটি বিষয়ের নাম বলার পাশাপাশি ইংরেজি কিংবা ব্যবসা অনুষদের কোন বিষয়ের নাম বলবেন। ভালবেসে নিজের মন থেকে সমাজবিজ্ঞানের নামটি হয়তো বলতেই চাইবেন না। কেননা পুঁজিবাদের এই যুগে শিক্ষার্থীরা সেই বিষয়টিই পড়তে চাইবেন যে বিষয়টি পরবর্তিতে অধিক অর্থ উর্পাজনের অবলম্বন হতে পারে। সাদা চোখে অনেক শিক্ষার্থীই ভাবতে পারেন সমাজবিজ্ঞান পড়ে ভালো কোন চাকুরী পাওয়া যাবেনা! কিন্তু বাস্তবতা হলো সমাজবিজ্ঞান বর্তমান বিশ্বে অধিক গ্রহণযোগ্য একটি বিষয়। শুধু বাংলাদেশেই নয় পশ্চিমা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সমাজবিজ্ঞান নিয়ে নিত্য-নতুন গবেষণা হচ্ছে। সামাজিক যেকোন সমস্যা সমাধানের জন্য সবাই সমাজবিজ্ঞানীদের পরামর্শ নিচ্ছে। বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় ৪৪টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ভর্তি করানো হচ্ছে। এই ৪৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ২৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান পড়ানো হয়। এই সব বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবছর অনেক নতুন শিক্ষক যোগদান করেণ, যারা সমাজবিজ্ঞান থেকে ভালো ফলাফল করে বের হচ্ছেন বা হবেন তাদের জন্য নিজের বা অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার অনেক বড় সুযোগ থেকে যাচ্ছে। যে সব শিক্ষার্থী মনে করেণ যারা সমাজবিজ্ঞানে পড়ালেখা করেণ তারা পরবর্তিতে ব্যাংকার হতে পারেননা, তাদের জন্য সুখবর হচ্ছে প্রতিবছর শত শত সমাজবিজ্ঞান পড়–য়া শিক্ষার্থী বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সোনালী, রুপালী, অগ্রণী, বেসিক ব্যাংকসহ সুনামধন্য সকল সরকারী বা বেসরকারী ব্যাংকে যোগদান করছেন। সামাজিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি সামাজিক নানাবিধ সমস্যা যেমন: ধর্ষণ, খুন, রাহাজানি, বেকারত্ব, মাদকাসক্ত, বিবাহ বিচ্ছেদ, কিশোর অপরাধ, চুরি, ছিনতাই, শিশু-কিশোর, যুবক ও বয়স্ক স্বাস্থ্য সমস্যার মাত্রা ভিন্নরুপ পরিগ্রহ করছে, সামাজিক এই সকল সমস্যা কিভাবে সমাধান করা যায় তার জন্য সবচেয়ে বেশি সামাজিক গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা, আর সরকার ও অন্যান্য সংস্থা এসব ক্ষেত্রে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করেই যাচ্ছে, ইচ্ছে করলেই সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা এই সকল গবেষণায় যুক্ত হতে পারবেন। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সমাজবিজ্ঞানের কোর্স কারিকুলামে গবেষণার উপর অনেক গুরুত্ব দেয়া হয়, যে কারণে সমাজবিজ্ঞান থেকে পাশ করে অনেক শিক্ষার্থী গবেষণা প্রতিষ্ঠানে তাদের কর্মজীবন সহজেই প্রতিষ্ঠা করতে পারেণ। বাংলাদেশে যেসব আন্তর্জাতিক ও দেশীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- আইসিডিডিআরবি, ব্র্যাক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব সোশ্যাল রিসার্চ, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ সেন্টার। সমাজবিজ্ঞান থেকে পাশ করে প্রতিবছর অনেক শিক্ষার্থী বিসিএস শিক্ষা ও অন্য ক্যাডারে যোগদান করছেন। বাংলাদেশে বর্তমানে প্রায় ২৫০০ অধিক বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা রয়েছে যাদের অধিকাংশ কর্মকর্তাই সমাজবিজ্ঞানের সাবেক শিক্ষার্থী। অর্থাৎ যে সকল শিক্ষার্থী সমাজবিজ্ঞান থেকে পাশ করে সরকারি প্রতিষ্ঠান কিংবা ভাগ্য বিড়ম্বনার কারণে কোথায়ও যোগদান করতে কঠিন হবে তারা সহজেই এই সকল উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানে যোগদান করতে পারবেন। এই সকল উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ব্র্যাক, আশা, প্রশিকা, জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশন, গ্রামীণ ব্যাংক, টিএমএসএস, কোষ্ট বাংলাদেশের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ভালো ফলাফল থাকার পরও অনেকে হতে পারেননা, তাদের মধ্যে অনেকেই ইচ্ছা করলে দেশের বাইরে স্কলারশিপ নিয়ে সমাজবিজ্ঞানের উপর উচ্চতর ডিগ্রী করতে পারেন, কেননা বর্তমান বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্র, সমাজবিজ্ঞান পড়–য়া শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য স্কলারশিপ দিচ্ছে এসব রাষ্ট্রের মধ্যে কানাডা, চীন, সুইডেন, অস্ট্রেলিয়া ও জাপান অন্যতম। সমাজবিজ্ঞান থেকে পড়ালেখা শেষ করে বেসরকারি এমপিওভুক্ত কলেজে কিংবা উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষাকতা করতে পারেন। সমাজবিজ্ঞানে পড়ে যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হয়েছেন তাদের মধ্যে ইতিমধ্যেই অনেকে বাংলাদেশের নামকরা বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেছেন অনেকে এখনও করছেন। কিছুদিন পূর্বেও বাংলাদেশের নামকরা ৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলেন সমাজবিজ্ঞানের সাবেক শিক্ষার্থী। সেই সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে রাজশাহী, চট্টগ্রাম, জাহাঙ্গীরনগর, বেগম রোকেয়া এবং জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় অন্যতম। এই সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী। সমাজবিজ্ঞান পড়লে যে দক্ষ উপাচার্য এবং প্রশাসক হওয়া যায় এই সকল মাননীয় উপাচার্যবৃন্দ তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। সমাজবিজ্ঞানে শুধু সমাজবিজ্ঞানই পড়ানো হয়না এখানে রাষ্ট্রবিজ্ঞান, সমাজ মনোবিজ্ঞান, অর্থনীতি, নৃবিজ্ঞান, চিকিৎসা সমাজবিজ্ঞান, অপরাধ বিজ্ঞানসহ প্রায় ৪০টির মত আধুনিক ও উচ্চমান সম্পন্ন বিষয় পড়ানো হয়, যে সকল বিষয় পড়লে একজন শিক্ষার্থী সামাজিক যাবতীয় বিষয় সর্ম্পকে সহজেই ধারণা লাভ করতে পারেন। বাংলাদেশের প্রায় ১৭টি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজজ্ঞিান পড়ানো হচ্ছে, পড়ালেখা শেষ করে অনেকেই এই সব বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করতে পারেন, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী যে সব বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি এবং দি পিপলস ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ। আচার-আচরণ, মূল্যবোধ, সামাজিক স্তরবিন্যাস, সমাজকাঠামো এবং সঠিক সামাজিকীকরণ জানতে হলে সমাজবিজ্ঞান পাঠের ব্যাপক গুরুত্ব রয়েছে। সর্বোপরি উদার ও ভালো মনের প্রকৃত মানুষ হতে চাইলে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হওয়ায় হবে শিক্ষার্থীদের অন্যতম ভালো সিদ্ধান্ত।

মো: রিয়াজুল ইসলাম
প্রভাষক
সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়
ত্রিশাল ময়মনসিংহ।

2,184 total views, 20 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের,তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।

Developed By H.m Farhad