,


সংবাদ শিরোনাম:

বৈধ অনলাইন নিউজ পোর্টালের তালিকা প্রকাশ হবে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে বৈধগুলোর তালিকা প্রকাশ করা হবে।
গতকাল শনিবার সকালে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে ‘গৌরবের অভিযাত্রায় ৭০ বছর : তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা সমস্ত অনলাইনকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য ৩০ তারিখ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছি। এরপর তথ্য মন্ত্রণালয়, তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয় করে বৈধ অনলাইন পত্রিকার তালিকা প্রকাশ করব।

তিনি বলেন, একবার শুনলাম তিন হাজার আবেদন জমা পড়েছে। এরপর আবার নাকি আরো পাঁচ হাজার জমা পড়েছে। আমরা হয়তো আর এক সপ্তাহ, ১০ দিন সময় বাড়াব। কিন্তু সবাইকে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।
সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানো নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা মতামত প্রকাশের দুয়ার অবারিত করে দিয়েছি। আগে মানুষ কোনো কিছু জানার জন্য পত্রিকা-টিভির শরণাপন্ন হতো। এখন মানুষ ফেসবুক ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে জানতে পারছে। আগে ৪০-৫০ লাখ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করত। এখন দেশে ৯ কোটি লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। তবে গুজব বিশ্বব্যাপী সমস্যা। আমরা মানুষের অধিকার অবারিত থাকুক এটাই চাই। তবে একজনের অধিকার প্রয়োগের ক্ষেত্রে অন্যজনের অধিকারে কোনো হস্তক্ষেপ হচ্ছে কি না, সে বিষয়ে লক্ষ রাখতে হবে।

তিনি বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া যখন গুজব ছড়াবে, তখনই ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে যে গুজব ছড়াচ্ছে, তা ব্যক্তি বা সমাজিক জীবনে কতটুকু হস্তক্ষেপ করছে, সে বিষয়টিও বিবেচনায় আনা হবে। এজন্য ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন হয়েছে। কেউ যদি গুজব ছড়ায়, এর মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ আছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতিতে কাজ করছে। দলের মধ্যে যদি কোনো নেতা মাদকে জড়িত থাকেন, তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। ছাত্র রাজনীতি নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাজনীতি হলো একটি ব্রত। তবে সা¤প্রতিক সময়ে কিছু সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে ছাত্র রাজনীতিতেও অবক্ষয় হয়েছে। এ জন্য একজন ছাত্রকে পড়াশোনা করে রাজনীতিতে আসতে হবে। আর রাজনীতি করতে হলে পরিবারের ঊর্ধ্বে এসে রাষ্ট্রকে পরিবার ভাবতে পারলে প্রকৃত রাজনৈতিক নেতা তৈরি হবে।

তিনি বলেন, নারীদের উন্নয়নে দু’টি বিষয় রয়েছে। একটি হলো নারী ক্ষমতায়ন ও অপরটি নারীর অর্থনৈতিক মুক্তি। নারীর ক্ষমতায়নে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। নারীর অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। যেমন- স্বামী পরিত্যক্তা নারীর ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, বিধবা ভাতা ইত্যাদি। পাশাপাশি সাসাজিক নিরাপত্তা বলয়ও গড়ে তোলা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্যানেল আলোচক হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার শাহ আলী ফারহাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের,তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।

Developed By H.m Farhad

Skip to toolbar