,


সংবাদ শিরোনাম:
«» কুমিল্লা জেলার ১১ ক্যাটাগরিতে ৮ পুলিশ কর্মকর্তার সাফল্য অর্জন।  «» পীর কাশিমপুরে জনসচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন «» ”কুমিল্লা মুরাদনগরের মাদ্রাসা ছাত্র রহমতুল্লাহ ৫ দিন ধরে নিখোঁজ” «» নির্বাচিত হলে সমস্যা সমাধানের সর্বাত্মক চেষ্টা করবো ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডের হেলাল তালুকদার «» ধানের শীষের প্রার্থীর পক্ষে গণজোয়ার দেখতে পাচ্ছি «» উওরার রাজপথে আফছার খানের প্রচারনায়,আবারো নির্বাচিত হবে বিপুল ভোটে… «» জাপার যুগ্ম মহাসচিব ফেরারি ফাঁসির আসামি-টঙ্গীতে নানা রকম ফেসবুকে ঝড় ? «» দুই সিটি ভোট কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ «» কুমিল্লায় শীতকালীন ক্রীড়া প্রাতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী- ডা: দিপু মনি। «» দুই সিটি নির্বাচনের নতুন তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি

শিশু তুহিন হত্যার রেশকাটতে না কাটতেই তোফাজ্জল হত্যা ফুফু চাচা সহ ৭ জন কারাগারে

রোকন মিয়া বিশেষ প্রতিনিধি : দিরাইয়ের বাবা ও চাচা কতৃক শিশু তুহিন হত্যার রেশ কাটতে না কাটতেই তোফাজ্জল হত্যা আটক করা হয়েছে নয় জন কে জিজ্ঞাসা বাদের পর ৭ জনকে জেলা কারাগারে প্রেরণ।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উত্তর শ্রীপুর ইউনিউনের বাঁশতলায় সাত বছরের শিশু তোফাজ্জেল হোসেনের মুক্তিপণের জন্য ৮০ হাজার টাকা দাবি করেছিল অপহরকারীরা। মুক্তিপণের টাকা না পাওয়ায় তোফাজ্জলকে খুন করা হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

নিহত তোফাজ্জল উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের সীমান্তগ্রাম বাঁশতলা দারুল হেদায়েত মাদরাসার প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল সে।

শনিবার (১১ জানুয়ারি) রাতে তাহিরপুর থানার সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায় , তোফাজ্জল হত্যা বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গিয়েছেন। আমাদের তদন্ত শেষ হলে খুনের কারণ জানাতে পারবো।

শিশু তোফাজ্জেল হত্যার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৯ জনকে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ। তারা হলেন- তাহিরপুর উপজেলার বাশতশা গ্রামের তোফাজ্জলের দাদা জয়নাল, চাচা ইকবাল হোসেন, ফুফু শেফালী বেগম, অপর ফুফু শিউলী বেগম, প্রতিবেশী হবি রহমান, তার স্ত্রী খইরুন নেছা ও তার ছেলে রাসেল। এছাড়াও শনিবার সকালেই একই গ্রামের কালা মিয়া ও তার ছেলে সেজাউল কবিরকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।দুদফায় এদের আটক করাা হয়।

এদের মধ্যে আজ দুুুুপুরে সুনামগঞ্জ জেলা কারাগারে প্রেরণে করা হয় শিশু তোফাজ্জল হোসেনের ফুফার বাবা কালা মিয়া তার ফুফা সেজাউল কবির, সেজাউলের স্ত্রী (তোফাজ্জেলের ফুফু) শিউলি আক্তার, একই গ্রামের হাবিব রহমান , তার ছেলে রাসেল , লোকমান হোসেন ও সালমান হোসেন(তোফাজ্জেলের চাচা)।

পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৮ জানুয়ারি বুধবার বিকেলে তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম বাশতলা দাদা জয়নাল মিয়ার বাড়ির সামনে থেকে নিখোঁজ হয় তোফাজ্জেল। আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীরা খোঁজ করলেও শিশুটিকে পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে তোফাজ্জেলের দাদা জয়নাল ৯ জানুয়ারি থানায় জিডি করেন বলে জানাযায়। তাছাড়া ৯ জানুয়ারি রাতে কে বা কারা শিশু তোফাজ্জেলের এক জোড়া জুতাসহ ৮০ হাজার টাকা মুক্তিপণের একটি চিরকুট বাড়ির বারান্দায় রেখে যায় বলে জানাযায় তোফাজ্জেলের পারিবারিক তথ্যে।

আরো জানাযায়,তোফাজ্জেলের ফুফু শিউলি বেগমের প্রায় ১ বছর আগে বিয়ে হয় একই গ্রামের কালা মিয়ার ছেলে সেজাউল কবিরের সাথে। বিয়ের পর শিউলি বেগমকে নির্যাতন শুরু করে ছেলে পক্ষের পরিবার এনিয়ে প্রায় তোফাজ্জেলের পরিবারের সঙ্গে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো সেজাউল ও তার পরিবারের। তাছাড়া সেজাউলরে বিরুদ্ধে মামলাও চলমান রয়েছে আদালতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন তোফাজ্জেলের বাবা ।

তোফাজ্জেলের বাবা জুবায়ের হোসেন জানান,আমার ছেলেকে হত্যা করেছে কালা মিয়া ও সেজাউল আমি এর বিচার চাই ।

এদিকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে তাদের পরিবারের সংশ্লিষ্টরা জানান,কালা মিয়া ও সেজাউল কে বাজে ভাবে কেউ ফাঁসানোর চেষ্টা করছে এমন ঘটনা তোফাজ্জেলের পরিবারের অন্য কেউ কালা মিয়া সেজাউল কে ফাঁসিয়ে দিতে এসব করতে পারে আমরাও তোফাজ্জেলের হত্যাকান্ডর বিচার চাই ।

এবিষয়ে তাহিরপুর থানার ওসি আতিকুর রহমান জানান,আমরা অজ্ঞাত আসামী দিয়ে মামলা নিয়েছি মামলার তদন্ত চলমান এখনো কে প্রকৃত আসামী বলা যাচ্ছে না আমরা জানতে পারলে আপনাদের জানাব।

10,368 total views, 12 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের,তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।

Developed By H.m Farhad