,



সংবাদ শিরোনাম:
«» এক দশক ধরে বর্তমান সরকার শিক্ষার উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে – প্রতিমন্ত্রী পলক «» নাটোরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক অটোরিক্সা চালকের মৃতদেহ উদ্ধার «» সিংড়ায় যুবদলের বিক্ষোভে পুলিশের বাধা «» উত্তরা পশ্চিম থানা জাতীয় পার্টির সম্মেলন «» বাগাতিপাড়ায় বাউয়েট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের নবীনবরণ «» নাটোরে স্কুল ব্যাংকিং কন্ফারেন্স অনুষ্ঠিত «» লালপুরে দুর্যোগ প্রশোমন দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা «» শেখ হাসিনাকে ১৯ বার হত্যা চেষ্টা চালায় «» টঙ্গী থানা জাতীয় পার্টি এডঃ মামুনকে এম.পি প্রার্থী হিসেবে কর্মী সভায় দাবী «» মুরাদনগর পূর্ব ধৈইর পূর্ব ইউনিয়ন ব্লাড ডোনারস এসোসিয়েশন শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে ফ্রি রক্তের গ্রুপের নির্ণয় ক্যাম্পেইন আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী লীগে রাসেল চূড়ান্ত

গাজীপুর-২ নির্বাচনী আসনের পুরো এলাকাই রয়েছে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী অনেকটাই চূড়ান্ত। বিএনপির প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন বেশ কয়েকজন।

আওয়ামী লীগ নেতারা নানা ইস্যুতেই ছুটে যাচ্ছেন তৃণমূল পর্যায়ের সাধারণ মানুষের কাছাকাছি। মনোনয়নপ্রত্যাশীরা তৃণমূল নেতাদের সমর্থন আদায়ে নানা তৎপরতা শুরু করেছেন। মনোনয়ন পেতে প্রার্থীরা দলের হাইকমান্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। আওয়ামী লীগ তাদের আসন ধরে রাখতে চায় আর ২০ দলীয় জোট তথা বিএনপি চায় তাদের হারানো আসন ফিরে পেতে।

আওয়ামী লীগের জাহিদ আহসান রাসেল পরপর তিনবার এমপি নির্বাচিত হয়ে বর্তমানেও রয়েছেন। তিনি এবারও মনোনয়ন চাইবেন এবং আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থিতা অনেকটাই চূড়ান্ত। আজমত উল্লা খানও  মনোনয়ন চাইতে পারেন।

টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ফজলুল হক বলেন, আওয়ামী লীগে কোনো বিরোধ নেই। জাহিদ আহসান রাসেলের পিতা প্রয়াত আহসান উল্লাহ মাস্টারের প্রতি রয়েছে এলাকাবাসী ও নেতাকর্মীদের অগাধ ভালোবাসা। খুবই সহজ-সরলভাবে বাবার ভালোবাসা নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে মিশে যাবার গুণ রয়েছে রাসেলের। এসব মিলেই বলা যায় আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের প্রার্থী জাহিদ আহসান রাসেল অনেকটাই চূড়ান্ত।

অন্যদিকে হাসান উদ্দিন সরকার সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রাথী হওয়াতে সংসদ নির্বাচনে প্রাথীতে পরিবর্তন আসতে পারে। বর্তমান মেয়র বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক এম এ মান্নান এ আসন থেকে মনোনয়ন চাইতে পারেন। তবে তার শারিরীক অবস্থার উপর নির্ভর করবে। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় আরো রয়েছেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য ডা. মাজহারুল আলম, কেন্দ্রীয় শ্রমিক দলের কার্যকরি সভাপতি সালাউদ্দিন সরকার, জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিল্পপতি মো. সোহরাব হোসেন।

জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন সরকার বলেন, আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি। আমাদের দল যাকেই সংসদ মনোনয়ন দেবে তাকে নিয়েই কাজ করব। যেমন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আমরা জয়ের জন্য একাট্টা।

বাসদের আব্দুল কাইয়ুম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের শেখ মো. মাসুদুল আলম, সিপিবির মো. জিয়াউল কবির নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন।

মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ভাইস  চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মো. আবদুস সাত্তার মিয়া এবার নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে শোনা যাচ্ছে। এছাড়া সম্প্রতি জাতীয় পাটিতে যোগদান করে জাতীয় পাটির চেয়ারম্যান হুসেন মুহাম্মদ এরশাদের স্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা সাবেক সচিব নিয়াজ আহমেদ নির্বাচনের ঘোষণা দেন।

50,204 total views, 1 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের,তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Skip to toolbar